বিশ্ব মানবতার মুক্তির দিশারী হযরত মুহাম্মদ (সা.)



সুপ্রিয় পাঠক, বিশ্ব মানবতার মুক্তির দিশারী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর পবিত্র জন্মের আনন্দঘন মাস রবিউল আউয়াল ৷ অধিকাংশ ঐতিহাসিকের মতে মহান এই রবিউল আউয়াল মাসের ১২ তারিখে তিনি বেহেশতী সুষমা নিয়ে প্রথিবীতে এলেন ৷ অবশ্য এমতের ব্যতিক্রমও আছে ৷ কোন কোন ঐতিহাসিকের মতে ১৭ই রবিউল আউয়ালে তিনি জন্মগ্রহণ করেন ৷ যাই হোক তিনি এলেন পথ ভ্রষ্ট্র মানুষকে পথ দেখিয়ে দিতে ৷ মিথ্যা পথের অন্ধকার থেকে আলোর পথে পরিচালিত করতে ৷ তাঁর আগমণ প্রথিবীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ৷ তাঁর আবির্ভাব সত্য ও সুন্দরের নির্ভীক বিজয়ের স্মারক ৷ তাঁর আগমনে আমরা পেয়েছি ইহকালীন শান্তি আর পরকালীন মুক্তির দিক-নির্দেশনা ৷ বিনয় অবনত শ্রদ্ধার সাথে তাই কৃতজ্ঞতা জানাই বিশ্বের সেই শ্রেষ্ঠ মহাপুরুষ আমাদের প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর প্রতি ৷ যাঁর আগমন না ঘটলে সুন্দর পেতনা তার পূর্ণরূপ ৷ পৃথিবী সৃষ্টি খুঁজে পেতো না স্বার্থকতা ৷

 কবির ভাষায়,

তুমি না আসিলে মধু ভান্ডার ধরায় কখনো হতনা লুট

তুমি না আসিলে নারগিস কভু খুলতনা তার পর্ণপুট

বিচিত্র আশা মুখর মাসুক খুলত না তার রুদ্ধ দিল

দিনের প্রহরী দিত না সরায়ে আবছা আঁধার কালো নিখিল ৷

 আমরা আজ তাঁর আগমনের বার্ষিকীতে তাঁরি পূণ্যময় জীবন ও কর্মের খানিকটা তুলে ধরে মূলত : নিজেদের জীবনই ধন্য করবো ৷

ত্রিভূনের প্রিয় মোহাম্মদ এলো রে দুনিয়ায়

আয়রে সাগর আকাশ-বাতাস দেখবি যদি আয়


হ্যাঁ
, ত্রিভূবনের যিনি প্রিয়, তিনি পৃথিবীতে এসেছেন ৷ সেজন্যে আকাশ-বাতাস, সমুদ্র পর্বত তথা নিসর্গের সবকিছুতেই আনন্দের ধারা বয়ে যাচ্ছে৷ মা আমেনার কোল জুড়ে এলো যেন এক পূর্ণিমার চাঁদ ৷ সে চাঁদের আলোয় আমেনার পাতার ঘর ঝলমল করছে ৷ কবি ফররুখ আহমদ তাঁর " সিরাজাম মুনীরা মুহাম্মদ মোস্তফা "



1 2 next