হযরত মুহাম্মাদ (স.) হতে বর্ণিত ৪০টি হাদীস (২)

মোঃ সামিউল হক


হযরত মুহাম্মাদ (স.) হতে বর্ণিত ৪০টি হাদীস ()

(২১) আল্লাহর নবী (স.) বলেছেন : লজ্জা দুই প্রকারের, বুদ্ধিবৃত্তি ভিত্তিক লজ্জা এবং বোকামীপূর্ণ লজ্জা। বুদ্ধিবৃত্তি ভিত্তিক লজ্জা জ্ঞান হতে উত্সারিত এবং বোকামীপূর্ণ লজ্জা অজ্ঞতা ও মূর্খতা হতে উত্সারিত হয়। (উসুলে কাফী, খণ্ড ২, পৃ. ১০৪)

(২২) মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (স.) বলেছেন : যখন তোমার লজ্জা শেষ হয়ে যায় তখন তুমি সব কিছু করতে পারো’ [লজ্জাহীন ব্যক্তিরাই বিভিন্ন গুনাহ সম্পাদন ও আইন লঙ্ঘনে কোন ভয় পায় না]। (বিহারুল আনওয়ার, খণ্ড ৬৮, পৃ. ৩৩৬)

(২৩) নবী করিম (স.) বলেছেন : তোমাদের মধ্যে সবচেয়ে সাহসী ব্যক্তি হচ্ছে সে, যে নিজের নাফসের চাহিদার উপর বিজয়ী হয়(মান লা ইয়াহযারহুল ফাকীহ, খণ্ড ৪, পৃ. ৩৯৫)

(২৪) আল্লাহর রাসূল (স.) বলেছেন : লোকদের উপর কর্তৃত্ব অর্জন ও বিজয়ী হওয়া সাহসীকতা ও বীরত্ব নয়, বরং নিজের লাগামহীন নাফসের উপর কর্তৃত্ব লাভ করাই হচ্ছে প্রকৃত সাহসীকতা ও বিজয়(মাজমুয়াতু ওয়ারাম, খণ্ড ২, পৃ. ১১)

(২৫) হযরত মুস্তাফা (স.) বলেছেন : যে ব্যক্তি জ্ঞান অর্জনের লক্ষ্যে ক্ষণিকের জন্য হেয় ও প্রতিপন্ন হতে প্রস্তুত হয় না, সে সারা জীবন অজ্ঞতার কারণে হেয় ও প্রতিপন্ন হয়(বিহারুল আনওয়ার, খণ্ড ১, পৃ. ১৭৭)

(২৬) নবি করিম (স.) বলেছেন : যে মুমিন মানুষের সাথে মেশে এবং তাদের ঝামেলা সহ্য করে, মহান আল্লাহর দরবারের তাদের পুরস্কার ঐ মুমিন অপেক্ষা বৃহ যে মানুষের সাথে মেশে না এবং তাদের ঝামেলাও সহ্য করে না(মেশকাতুল আনওয়ার ফি গুরারিল আখবার, পৃ. ১৯৩)

(২৭) হযরত মুহাম্মাদ বিন আব্দুল্লাহ (স.) বলেছেন : মুনাফিকের তিনটি চিহ্ন : ১-যখন কথা বলে মিথ্যা বলে, ২-যখন প্রতিশ্রুতি দেয় তা ভঙ্গ করে, ৩-আমানতের খেয়ানত করে(সহীহ মুসলিম, কিতাবুল ঈমান, পৃ. ৮৯)

(২৮) রাসূলে আকরাম (স.) বলেছেন : হে আলী! নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ্ সমাধানের উদ্দেশ্যে বলা মিথ্যাকে পছন্দ করেন এবং ফাসাদ সৃষ্টির কারণ হয় এমন সত্য বলাকে অপছন্দ করেন(মাকারেমুল আখলাক, পৃ. ৪৩৩)

(২৯) আল্লাহর রাসূল (স.) বলেছেন : যে নিজের বোঝা অন্যের উপর চাপিয়ে দেয় সে ব্যক্তি অভিশপ্ত



1 2 next