সূরা আলে ইমরান ১৪-১৭

ড. সামিউল হক
রেডিও তেহরান

সূরা আলে ইমরান; আয়াত ১৪-১৭ (পর্ব ৩)

সূরা আলে ইমরানের ১৪ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে-

زُيِّنَ لِلنَّاسِ حُبُّ الشَّهَوَاتِ مِنَ النِّسَاءِ وَالْبَنِينَ وَالْقَنَاطِيرِ الْمُقَنْطَرَةِ مِنَ الذَّهَبِ وَالْفِضَّةِ وَالْخَيْلِ الْمُسَوَّمَةِ وَالْأَنْعَامِ وَالْحَرْثِ ذَلِكَ مَتَاعُ الْحَيَاةِ الدُّنْيَا وَاللَّهُ عِنْدَهُ حُسْنُ الْمَآَبِ (14)

 

"নারী,সন্তান-সন্ততি,সোনা রুপার ভাণ্ডার আর সুশিক্ষিত ঘোড়া,গবাদি পশু এবং ক্ষেত- খামার মানুষের কাছে সুন্দর,আকর্ষণীয় ও লোভনীয় করা হয়েছে। এসবই ক্ষণস্থায়ী জীবনের ভোগ্য-বস্তু মাত্র। আল্লাহর কাছেই রয়েছে শ্রেষ্ঠ আশ্রয়স্থল।" (৩:১৪)

আল্লাহ মানুষকে এই পৃথিবীতে পাঠানোর পর জীবন-যাপনের সমস্ত বৈধ উপকরণ তাদের জন্য সৃষ্টি করেছেন। ভবিষ্যত বংশধারা রক্ষার জন্য আমরা স্ত্রী বা স্বামী এবং সন্তান- সন্ততির মুখাপেক্ষী । এছাড়াও আমাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য আমাদের অর্থ ও সম্পদের প্রয়োজন হয়। খাদ্য ও পোশাক সংগ্রহের জন্য আমরা পশু পাখী ও ক্ষেত খামারেরও অধিকারী হতে চাই। আল্লাহ এ সবকিছুই আমাদের জন্য সহজ করে দিয়েছেন। কিন্তু এটা অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, এসব কিছুই ক্ষণস্থায়ী ও ধ্বংসশীল। পৃথিবীতে আমাদের জীবন মানুষের সর্বোচ্চ আয়ুর মধ্যেই সীমিত। যদি আমরা আল্লাহ ও পুনরুত্থান দিবসের প্রতি বিশ্বাস রাখি,তাহলে পৃথিবীর চাকচিক্যের ধোঁকায় পড়া আমাদের উচিত হবে না। কারণ,কেয়ামতের দিন এসবের কোন মূল্যই থাকবে না।

এই আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো,

প্রথমত : বৈষয়িক সম্পদের প্রতি আকর্ষণ প্রতিটি মানুষের সহজাত প্রকৃতি,কিন্তু বিপজ্জনক বিষয় হলো,বৈষয়িক চাকচিক্যের মোহে প্রতারিত হওয়া।

দ্বিতীয়ত : পার্থিব বিষয়- আশ্রয়কে ব্যবহার করা ও সেসবের প্রতি আকর্ষণ মন্দ নয়। কিন্তু পার্থিব বিষয়-আশ্রয়ের মোহের জালে বাধা পড়া এবং এসবের ওপর নির্ভর করা ক্ষতিকর।

তৃতীয়ত : আমাদের আশা ও আকাঙ্ক্ষা নিয়ন্ত্রণের জন্য আল্লাহর স্থায়ী নেয়ামতের সাথে ক্ষণস্থায়ী নেয়ামতের তুলনা করতে হবে।



1 2 next