তাফসীর বিষয়ক অনুষ্ঠান-১

রেডিও তেহরান

গর্ব, অহঙ্কার অন্য মানুষকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা এ সবই নিফাকের বৈশিষ্ট্যতারা নিজেদেরকে বুদ্ধিমান, প্রজ্ঞাবান ও চালাক মনে করেআর মুমিনদেরকে ভাবে নির্বোধ, সহজ-সরল ও বোকাতাই কপট বা মুনাফিক ব্যক্তিদেরকে যখন বলা হয় কেন তোমরা নিজেদেরকে অন্যান্য মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন করে নিয়েছ এবং তাদের মত ঈমান আনোনা তখন তারা ঈমানদার ও বিশ্বাসীদেরকে বোকা বলে অভিহিত করেযে মুমিন ব্যক্তিরা সুখ-দু:খ, যুদ্ধ-বিগ্রহ, ঝড়-ঝঞ্ঝা সর্বাবস্থায় তাদের ধর্ম ও নেতার পাশে অতন্দ্র প্রহরীর মতো দায়িত্ব পালন করে, তাদেরকে মুনাফিকরা নির্বোধ বলে মনে করেআর পবিত্র কোরআন তাদের এ ধরনের ঔদ্ধত্যপূর্ণ কথার জবাবে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলে-তোমরা যারা মুমিনদেরকে নির্বোধ মনে কর, তারাই আসল নির্বোধতবে সমস্যা হলো তারা তাদের এই মূর্খতা ও নির্বুদ্ধিতা সম্পর্কে জানেনাতারা তাদের অজ্ঞতা সম্পর্কেই কিছু জানে নাতাই তারা ভাবে অন্যরা কেউ কিছু জানেনা আর তারা সব কিছু জানে বোঝে

সূরা বাকারার ১৩ নম্বর আয়াতের কয়েকটি শিক্ষণীয় বিষয় এবার তুলে ধরছি

প্রথমত: মুমিনদের খাটো করা, অপমান করা মুনাফিকদের একটি পন্থা এভাবে তারা নিজেদেরকে অন্যদের উপর শ্রেষ্ঠত্ব দান করতে চায়

দ্বিতীয়ত: অহঙ্কারী ব্যক্তির সাথে তার মতো আচরণ করা উচিযে ব্যক্তি মুমিনদের হেয় করে তাকেও সমাজে হেয় করতে হবে যাতে তার মিথ্যা অহঙ্কার ও দর্প চূর্ণ হয়

তৃতীয়ত: উপহাস ও হেয় করা নির্বোধের কাজবুদ্ধিমান ব্যক্তি যুক্তির ভাষায় কথা বলে, আর নির্বোধ ব্যক্তি কথা বলে উপহাসের ভাষায়

চতুর্থত: আল্লাহপাক মুনাফিকদেরকে এ দুনিয়াতেই অপদস্ত করেনএবং তাদের কদর্য চেহারা উন্মোচিত করেন#

 

( ৯ম পর্ব )

কোরআনের আলোর আজকের পর্বে আমরা সূরা বাকারার ১৪, ১৫ ও ১৬ নম্বর আয়াত নিয়ে আলোচনা করবসুরা বাকারার ১৪ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে- "মুনাফিকরা যখন ঈমানদারদের সংস্পর্শে আসে তখন তারা বলে-আমরাও বিশ্বাস করিকিন্তু যখন তারা তাদের শয়তান সহযোগীদের সাথে গোপনে মিলিত হয় তখন তারা বলে-আমরাতো তোমাদের সাথে রয়েছি

আমরা শুধু ঈমানদারদের সাথে ঠাট্টা-তামাশা করে থাকিনিফাক বা কপটতার আরেকটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে মুনাফিকের কোন নিজস্ব স্বাধীন ও দৃঢ় ব্যক্তিত্ব নেই মুনাফিকরা যে পরিবেশে যায় সেই পরিবেশের রং ধারন করেতারা যখন মুমিনদের মাঝে যায়, তখন মুমিনের ভাব দেখায়আবার যখন ইসলামের নেতা ও মুমিনদের দুশমনদের সাথে মিলিত হয়, তাদের সাথে কণ্ঠে কণ্ঠ মেলায়, মুমিনদের বিরুদ্ধে কথা বলে এবং তাদের সুনজরে পড়ার জন্য মুমিনদেরকে নিয়ে উপহাস ও ঠাট্টা-তামাশা করেএই আয়াতও আমাদেরকে সতর্ক করে দেয় যাতে লোকজনের বাহ্যিক আচরণে আমরা ধোকা না খাইঈমানের দাবী করলেই তাকে মুমিন ভাবা ঠিক নয় এবং দেখতে হবে ঈমানের দাবীদার ব্যক্তি কাদের সাথে ওঠা বসা করে এবং তার বন্ধুই বা কারাকেউ মুমিন হবে আবার ইসলামের নেতাদের শত্রু ও ধর্মের দুশমনদের বন্ধু হবে-এটা মেনে নেয়া যায় না



back 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 next