তাফসীর বিষয়ক অনুষ্ঠান-১

রেডিও তেহরান

ঈমান, ইসলামের শত্রুদের সাথে আপোষ এবং বন্ধুত্বের পরিপন্থী ঈমানের আবশ্যিক দিক হলো আল্লাহর দুশমনদের সাথে শত্রুতাসূরা বাকারার ১৪ নম্বর আয়াতের কয়েকটি শিক্ষণীয় বিষয় হলো-

প্রথমত: শয়তান শুধু জ্বীন জাতির শয়তান নয় বরং যেসব মানুষ অন্যদেরকে বিভ্রান্ত করে তারাও শয়তান এবং তাদেরকে পরিহার করতে হবে

দ্বিতীয়ত: সত্য ব্যবস্থার বিরুদ্ধে গোপন বৈঠক ও শলা-পরামর্শের অর্থ হলো মত প্রকাশে সাহসিকতার অভাবমুনাফিকরা যারা বিশ্বাসীদেরকে উপহাস ও তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করে, তারা ভীতু ও দুর্বল চিত্তের অধিকারী

তৃতীয়ত: মুনাফিকরা হলো সমাজে দুশমনদের হাতিয়ার এবং তাদেরই ইচ্ছা অনুযায়ী চলেতাদেরকে বলে "ইন্না মাআকুম"- আমরা তোমাদের সাথে আছি, মুমিনদের সাথে নয়

এবারে সূরা বাকারার ১৫ নম্বর আয়াত নিয়ে আলোচনা করা যাকএ আয়াতে বলা হয়েছে- "আল্লাহও তাদেরকে উপহাস করেন এবং তাদেরকে তাদের অবাধ্যতায় বিভ্রানে-র মত ঘুরে বেড়ানোর অবকাশ দেনরাসূলে খোদার আহলে বাইতের সদস্য ইমাম মূসা রেজা(আ:) বলেন-"আল্লহপাক ধোকাদানকারী বা উপহাসকারী ননকিন্তু দুশমনদের ধোকা ও উপহাসের শাস্তি তিনি দেন।" মুনাফিকরা যে বিভ্রান্তি ও হৃদয়ের অন্ধত্বের শিকার হয় তার চেয়ে বড় শাস্তি আর কী হতে পারে? আল্লাহর নিয়ম হলো তিনি অত্যাচারী পাপীদের সময় দেনএ সময়টিকে যদি মানুষ তওবা ও অনুশোচনার জন্য ব্যবহার করে তাহলে তা হবে তার জন্য রহমত তা না হলে তারা আরো পাপের মধ্যে ডুবে যাবে এবং শেষ পর্যন্ত ধ্বংস হয়ে যাবে মুনাফিকদের জন্য আল্লাহর শাস্তি হলো তাদেরকে নিজেদের অবস্থায় ছেড়ে দেয়াএর ফলে তাদের মধ্যে বিভ্রান্তিকর অবস্থার সৃষ্টি হয়তাদের নেই কোন লক্ষ্য-উদ্দেশ্য এবং নেই কোন শান্তিসূরা বাকারার ১৫ নম্বর আয়াতের কয়েকটি শিক্ষণীয় বিষয় হলো-

প্রথমত: মানুষের গুনাহ্‌ যেরকম, আল্লাহর শাস্তিও সেরকমতাই উপহাসের শাস্তিও উপহাস

দ্বিতীয়ত: আমাদেরকে যে সময় দেয়া হয়েছে তাতে অহঙ্কারী হওয়া উচিত নয়হয়তো এটিও আল্লাহর এক ধরনের রহমত

তৃতীয়ত: আল্লাহপাক মুমিনদের সাহায্যকারীমুনাফিকরা যদি মুমিনদের উপহাস করে তাহলে আল্লাহও তাদেরকে উপহাস করবেন এবং শাস্তি দেবেন

এবারে সুরা বাকারার ১৬ নম্বর আয়াতএ আয়াতে বলা হয়েছে- "এরাই স পথের বিনিময়ে ভ্রান্ত পথ কিনে নিয়েছেকিন্তু তাদের ব্যবসা লাভজনক হয়নি এবং তারা স পথও পায়নি।" আমরা যে দুনিয়ায় বাস করছি, তা একটি বাজারের মতআমাদের সবাইকে ব্যবসায়ী হিসাবে নিজেদের সম্পদ বিক্রি করতে হয়যৌবন, বুদ্ধি, প্রজ্ঞা জ্ঞান, শক্তি, জীবন এবং আল্লাহর দেয়া সব যোগ্যতাকে সম্পদ হিসাবে বিক্রি করতে হয়এ বাজারে একদল মুনাফা অর্জন করে, অন্যদল দেউলিয়া হয়ে পড়েযারা দেউলিয়া হয়ে পড়ে, তারা লাভতো দূরের কথা এমনকি মূলধন পর্যন্ত হারিয়ে ফেলেএ যেন অনেকটা বরফ বিক্রেতার মতবরফ বিক্রেতা যদি তার জিনিস বিক্রি না করে তা হলে মুনাফাতো নয়ই বরং তার মূলধন পানি হয়ে যাবে এবং সে তার সর্বস্ব হারাবে

আল্লাহপাক কোরআনের বিভিন্ন স্থানে মানুষের ভালো ও মন্দ কাজকে ব্যবসার সাথে তুলনা করেছেনযেমন সূরা সাফের ১০ ও ১১ নম্বর আয়াতে ঈমান ও জেহাদকে লাভজনক ব্যবসা আখ্যায়িত করে বলা হয়েছে- "হে ঈমানদারগণ! আমি কি এমন এক ব্যবসার সন্ধান দেব যা তোমাদেরকে কঠিন শাস্তি থেকে রক্ষা করবে? আর তা হলো-তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন কর এবং তোমাদের ধন-সম্পদ ও জীবন দিয়ে আল্লাহর রাস্তায় সংগ্রাম কর।"



back 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 next