সূরা বাকারার তাফসীর-৩

রেডিও তেহরান

সূরা বাকারার ১৭০ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে, "যখন তাদের বলা হয় যে, আল্লাহ যা অবতীর্ণ করেছেন, তোমরা তা অনুসরণ কর, তারা বলে বরং আমরা ওরই অনুসরণ করব যার ওপরে আমাদের পিতৃপুরুষগণকে পেয়েছি। যদিও তাদের পূর্বপুরুষদের কোন জ্ঞান ছিল না।"

পূর্ব পুরুষদের প্রথা ও সংস্কৃতি রা করাটা ভাল। কিন্তু ঐসব প্রথা হতে হবে বিবেক ও ঐশী দিক নির্দেশনার সাথে সংগতিপূর্ণ। পূর্ববর্তীদের কুসংস্কারকে জাতিগত বিদ্বেষের কারণে অনুসরণ করা ঠিক হবে না। মানুষের মধ্যে শয়তানের প্রভাব সৃষ্টির বিভিন্ন পন্থার মধ্যে অন্যতম হল পূর্বপুরুষদের অন্ধ অনুসরণ এবং পূর্ববর্তীদের কূ-প্রথাকে কোন প্রশ্ন ছাড়াই অনুসরণ করা। অথচ তারা নিজেরাও জানে যে ঐ প্রথা বা কাজ ভুল এবং ধর্মও তাকে এ ধরণের কাজ করতে নিষেধ করে।

এবারে সূরা বাকারার ১৭১ নম্বর আয়াতের অর্থ ও ব্যাখ্যা নিয়ে আলোচনা করা যাক। এ আয়াতে বলা হয়েছে, "যারা অবিশ্বাস করেছে, তাদের দৃষ্টান্ত ওদের মত, যেমন কেউ অহ্বান করলে চিৎকার ও ধ্বনি ছাড়া কিছু শোনে না। এরা বধির, বোবা ও অন্ধ এবং এরা কিছুই বোঝে না।" পূর্ববর্তী আয়াতে বলা হয়েছে, অবিশ্বাসীরা পূর্বপুরুষদের কূসংস্কারাচ্ছন্ন চিন্তা ভাবনার অন্ধ অনুসরণ করে অথচ ঐসব চিন্তাভাবনার না ছিল কোন যৌক্তিক ভিত্তি এবং না ছিল ঐশী নির্দেশনার সাথে কোন সম্পর্ক। এই আয়াতে বলা হচ্ছে-কাফেররা নিজেরা কোন চিন্তা-ভাবনা করে না। তারা সত্যের ব্যাপারে তাদের চোখ ও কান বন্ধ করে রেখেছে-যাতে কিছুই না দেখে এবং না শোনে। এদের দৃষ্টান্ত ঠিক ভেড়ার পালের মত। রাখালরা যতই তাদেরকে ভয় দেখাক না কেন রাখালের কোন কথার অর্থ তারা বোঝে না। তারা শুধু চিৎকার ও ধ্বনি শুনতে পায়। অবিশ্বাসীরাও জন্তু-জানোয়ারের মত চোখ, কান ও জিহবার অধিকারী। কিন্তু তাদের বিবেক ও চিন্তাভাবনাকে কাজে লাগায় না। আর এ কারণে তারা সত্যকে না দেখতে পেয়ে পূর্ব পুরুষদের ভ্রান্ত প্রথা ও বিশ্বাসের অনুসরণ করে। পূর্ব পুরুষেরা যা বলে গেছে তাই অন্ধভাবে অনুসরণ করে।

এবারে সূরা বাকারার ১৬৭ নম্বর আয়াত থেকে ১৭১ নম্বর আয়াতগুলোর শিক্ষণীয় বিষয়গুলো তুলে ধরছি।

প্রথমতঃ মানুষ পশু নয় যে পেটের দাস হবে। তাই ঐশী বিধান অনুযায়ী পবিত্র ও হালাল খাবার থেকেই খাবারের চাহিদা মেটাতে হবে।

দ্বিতীয়তঃ যারাই মানুষকে নোংরা ও অশ্লীল কাজের দিকে আহ্বান জানাবে তারাই শয়তান, যদিও বাহ্যিকভাবে তারা মানুষের মত।

তৃতীয়তঃ পূর্ব পুরুষদের প্রথা, সংস্কৃতি চিন্তাধারা তখনই মেনে নেয়া যায় যদি তা বিবেক ও জ্ঞান ভিত্তিক হয়। তা না হলে এক প্রজন্ম থেকে অন্য প্রজন্মে কুসংস্কার ছড়িয়ে দেয়ার ফলে শুধুমাত্র অধঃপতন ও ধ্বংসই অবশ্যম্ভাবী।

চতুর্থতঃ মানুষের মূল্য থাকে তখনই যখন সে বিবেক ও চিন্তা-ভাবনাকে কাজে লাগায়। তা না হলে পশুদেরও চোখ, কান ও জিহবা আছে। #

কোরআনের আলো

( ৪৮ তম পর্ব )



back 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 11 12 13 14 15 16 17 18 19 20 21 22 23 24 25 26 27 28 next